Text size A A A
Color C C C C
পাতা

প্রকল্প

গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পসমুহঃ

 

নাম

 

সার সংক্ষেপ/ প্রকল্পের মূল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য

১। ধানফসলেরফলনপার্থক্যকমানো প্রকল্প

Ø         ধান বাংলাদেশের প্রধানতম খাদ্য শস্য। দেশের প্রায় ৭৫% ফসলী জমিতে ধান চাষ করা হয়।

Ø         বাংলাদেশে গবেষণা পর্যায়ে উফশী ধানের গড় উৎপাদনক্ষমতা ৭.০০ টন/হেক্টরেরও বেশী, অথচ কৃষক পর্যায়ে উৎপাদনহচ্ছে ৪.০০ টনেরও কম।

Ø          বাংলাদেশের কৃষকরা যথেষ্ট শ্রম, সময় ও অর্থ ব্যয় করে ধান ফসলের ফলন বৃদ্ধির চেষ্টা করে। কিন্তু বিজ্ঞানসম্মত আধুনিক উৎপাদনকলাকৌশল যথাযথ ব্যবহার করতে না পারার কারণে কাংখিত ফলন থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

Ø         সুষম সার সঠিক সময়ে ব্যবহার

Ø         সঠিক সময়ে চারা রোপন

Ø         সঠিক বয়সের চারা রোপন

Ø         সঠিক সময়ে বোরো ধান  রোপন

Ø         ভাল মানের বীজ ব্যবহার  করা

Ø         মাঠ প্রদর্শনী, প্রশিক্ষন ও এফএফএস এর মাধ্যমে কৃষকদের আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারে দক্ষ করে তোলাই এ প্রকল্পের মুল উদ্দেশ্য।

 

২। চাষী পর্যায়ে উন্নতমানের ধান,গম ও পাট বীজ উৎপাদন,সংরক্ষন ও বিতরণ প্রকল্প

 

১। উচ্চ ফলনশীল বীজের ঘাটতি পূরণে মান সম্পন্ন ধান,গম ও পাট বীজ  উৎপাদন বৃদ্ধি।

২। গবেষণা প্রতিষ্ঠান কর্তৃকসর্বশেষ ছাড়কৃত ধান,গম ও পাটের উন্নত জাতের সম্প্রসারন।

৩। অধিক হারে উন্নতমানের বীজের উৎপাদনকারী কৃষক সৃষ্টি করা।

৪। বীজ প্রক্রিয়াজাতকরণে ও বাজারজাতকরণে মহিলাদের অংশগ্রহণ নিশ্চিতকরণের মাধ্যমে দারেদ্র বিমোচনে সহায়তা করা।

 

৩। চাষী পর্যায়ে উন্নতমানের ডাল,তেল ও পেয়াজবীজ উৎপাদন,সংরক্ষন ও বিতরণ প্রকল্প

 

১। উচ্চ ফলনশীল বীজের ঘাটতি পূরণে মান সম্পন্ন ডাল,তেল ও পেয়াজ বীজ  উৎপাদন বৃদ্ধি।

২। গবেষণা প্রতিষ্ঠান কর্তৃকসর্বশেষ ছাড়কৃত ডাল,তেল ও পেয়াজের উন্নত জাতের সম্প্রসারন।

৩। অধিক হারে উন্নতমানের বীজের উৎপাদনকারী কৃষক সৃষ্টি করা।

৪। বীজ প্রক্রিয়াজাতকরণে ও বাজারজাতকরণে মহিলাদের অংশগ্রহণ নিশ্চিতকরণের মাধ্যমে দারেদ্র বিমোচনে সহায়তা করা।

 

৪। সমন্বিত বালাই ব্যবস্থাপনা (আইপিএম) প্রকল্প

১। পরিবেশ ও জনস্বাস্থ্যের কোনরুপ ক্ষতি না করে স্থায়ীভাবে খাদ্যে স্বয়ংসম্পুর্ণতা অর্জন করা

২। ক্ষুদ্র কৃষকদেও উৎপাদন ও আয় বৃদ্ধিতে সহায়তা করা ।

৩। কৃষক মাঠ স্কুল পদ্ধতিতে কৃষক প্রশিক্ষণ এবং আইপিএম ক্লাব স্থাপনের মাধ্যমে সমন্বিত বালাই ব্যবস্থাপনা তথা সমন্বিত ফসল উৎপাদন (বীজ উৎপাদন থেকে বীজ সংরক্ষন পর্যন্ত) কার্যক্রম জোরদার করা।

৪। পরিবেশ বান্ধব পদ্ধতিতে ফসল উৎপাদনের ধারা অব্যাহত রাখা।

৫। জেব কৃষি ও জৈবিক বালাই ব্যবস্থাপনা কার্যক্রম জোরদারকরণের মাধ্যমে স্বাস্থ্যসম্মত সবজি ও ফল উৎপাদন করা।